-->

ইরানের বিপ্লবের ৪০ তম বার্ষিকী

কয়েক সপ্তাহ পরেই বিপ্লবের দিনটির স্মরণ করতে যাচ্ছে ইরানের জনগণ।তবে ভাবনার বিষয় হল বিপ্লবের চল্লিশ বছর পর আজ তাদের কী অবস্থা এবং কতটা সার্বিক সন্তুষ্টি নিয়ে চল্লিশ বছরপূর্তি উদযাপন করতে যাচ্ছে•••

কয়েক সপ্তাহ পরেই বিপ্লবের দিনটির স্মরণ করতে যাচ্ছে ইরানের জনগণ।তবে ভাবনার বিষয় হল বিপ্লবের চল্লিশ বছর পর আজ তাদের কী অবস্থা এবং কতটা সার্বিক সন্তুষ্টি নিয়ে চল্লিশ বছরপূর্তি উদযাপন করতে যাচ্ছে•••

ইরানের বিপ্লবের 40তম বার্ষিকী


বিগত দশ বছর সবচেয়ে কঠিন সময় পার করে আসছে ইরানের বিপ্লবের নায়ক কর্তৃত্ববাদি খোমেনি সরকার।দেশ না বলে সরকার কঠিন সময় পার করছে বলার কারণ হল,যুক্তরাষ্ট্রের এত অবরোধ,চাপ,হুমকির কারণ হল ইরানের সরকার ব্যবস্থা তথা আয়াতুল্লাহদের কর্তৃত্ববাদি সরকার।মার্কিনিদের লক্ষ্য হল এই ব্যবস্থা হটিয়ে গণতান্ত্রিক সরকার গঠন করে নিজ প্রভাব বিস্তার করা,যা বর্তমান সরকার ব্যবস্থায় সম্ভব নয়•••


রাশিয়ার অক্টোবর বিপ্লব ও গণচীনের বিপ্লবের পর ইরানের রাজনৈতিক পরিবর্তন ছিল বড় তাৎপর্যবহ ঘটনা।রাশিয়ায় 28 বছর আগে ক্ষমতা থেকে অপসারিত হয়েছে কমিউনিস্টরা,আর চীনে কমিউনিস্ট থাকলেও সমাজতন্ত্র নেই।কিন্তু ইরানে আয়াতুল্লাহরা টিকে আছেন চল্লিশ বছর যাবৎ।বৈশ্বিক মানব উন্নয়নে তারা 189 টি দেশের মধ্যে 60তম;যা তুরষ্ক,চীন,ভারতেরও উপরে!
আর তাদের প্রভাব বৃদ্ধি পেয়েছে ইরাক-সিরিয়া-ইয়েমেন-লেবানন পর্যন্ত•••


তবে বিপ্লবের চল্লিশতম বছরে অনিশ্চয়তার এক পরিস্থিতিতে পড়েছে খোমেনি অনুসারিরা।চল্লিশ বছর ধরে একের পর এক অবরোধ সামলে এগিয়ে আসা ইরান এখন ডলারকেন্দ্রিক অর্থব্যবস্থার প্রায় বাইরে।এছাড়াও তেল বিক্রি, সমুদ্র বাণিজ্য,ব্যাংক ব্যাবস্থা- তিন ক্ষেত্রেই অবরোধের চাপে ইরানের অবস্থা ক্লান্ত পাখির ন্যায়•••
বর্তমানে ইরানিরা যেন এক নিরব অর্থনৈতিক যুদ্ধের মুখোমুখি।অর্থনীতিবিদরা বলছে,আগামী মাসে ইরানে বেকারত্ব ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেতে পারে,যা জনগণের মাঝে অসন্তুষ সৃষ্টির জন্য যথেষ্ট•••


ওয়াশিংটনের চাওয়াটিও স্পষ্ট।ইরানের মানুষ ত্যাক্তবিরক্ত হয়ে রাস্তায় নামুক এবং খোমেনি সরকারের পতন ঘটাক।কিন্তু চল্লিশ বছর ধরে যে শাসন ব্যবস্থা শত চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে দেশের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে,তার টিকে থাকার একটি রহস্য তো রয়েছেই,যেখানে বিপ্লবের উত্থানকারী রাশিয়া এবং চীনে কমিউনিস্ট,সমাজতন্ত্র টিকতে পারেনি•••


ইরানের বিপ্লবের ৪০ তম বার্ষিকী
ইরানের বিপ্লবের ৪০ তম বার্ষিকী

তার অন্যতম কারণ হল,সম্পদের শিয়াবাদি সুষম ব্যবস্থাপনার অনুসরণকারী ইরানের কর্তৃত্ববাদি খোমেনি সরকার অবাধ রাজনৈতিক ক্ষমতার অধিকারী হয়েও সাধারণভাবে এখনো ভোগবিলাস কিংবা দুর্নীতিতে মত্ত হয়নি,আর একের পর এক অবরোধ যেন তাদের রক্ষণশীল এই নীতিকে পাকাপোক্ত করেছে•••


তবে আশার আলো জ্বলেছে গত কয়েকদিন আগে;যখন চীন,ভারত,তুরষ্ক,জাপানসহ আটটি দেশকে ইরান থেকে তেল কেনার অবরোধে যুক্তরাষ্ট্র কিছুটা শীথিলতা আনে•••
এছাড়াও চীন এবং ভারত বলেছে,ইরান থেকে তেল ক্রয়ের এই অবরোধ তারা আর মানবে না!
এক হিসাবে দেখা যায়,ভারত এই বছর ইরান থেকে তেল ক্রয়ের পরিমাণ গত বছরের তুলনায় দ্বিগুণ করেছে।
এখন দেখার বিষয়,শিয়াবাদি সম্পদের সুষম ব্যবস্থাপনা যেখানে এতোদিন জনগণকে রাস্তায় নামতে আগ্রহ জোগায়নি,সেখানে অবরোধের যন্ত্রণা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তা করতে কতটা সফল হয়•••

ANALYSING THE WORLD

Author & Editor

International Political Analyst and Content Writer.

0 comments:

Post a Comment

Please do not enter any spam link in the comment box.